1. shahajahanbabu@gmail.com : admin :
চাঁদের পানি কেন এত মূল্যবান! - Pundro TV
রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১২:৪৯ অপরাহ্ন



চাঁদের পানি কেন এত মূল্যবান!

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, ২৯ আগস্ট, ২০২৩

রাশিয়া, চীন, ভারত সহ পশ্চিমা মহাকাশ সংস্থাগুলি চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে মহাকাশযান অবতরণ করার চেষ্টা করছে, অন্যদিকে চন্দ্রযান-৩ মিশন, অন্যদের মতো, ভারতের মহাকাশ উচ্চাকাঙ্ক্ষাকে এগিয়ে নিতে পারে। এটি চাঁদের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ, বরফ এবং জল সম্পর্কে আমাদের জ্ঞানকে আরও প্রসারিত করতে পারে।

চলুন জেনে নেওয়া যাক চাঁদে হিমায়িত জলের উপস্থিতি সম্পর্কে আমরা কী জানি এবং কেন মহাকাশ সংস্থা এবং প্রাইভেট কোম্পানিগুলি এই বরফটিকে চন্দ্র উপনিবেশ, খনিজ অনুসন্ধান এবং মঙ্গল গ্রহে সম্ভাব্য মিশনের জন্য একটি মূল সহায়ক হিসাবে দেখে।

বিজ্ঞানীরা কিভাবে চাঁদে পানি খুঁজে পেলেন?

ষাটের দশকের প্রথম দিকে, প্রথম অ্যাপোলো মিশন অবতরণ করার আগে, বিজ্ঞানীরা অনুমান করেছিলেন যে চাঁদে জল থাকতে পারে। সত্তুর এর দশকের গোড়ার দিকে, বিশ্লেষণের জন্য অ্যাপোলো ক্রুদের দ্বারা চাঁদ থেকে ফিরিয়ে আনা নমুনাগুলি প্রথমে শুকনো দেখা গিয়েছিল। ২০০৮ সালে, ব্রাউন ইউনিভার্সিটির গবেষকরা একটি নতুন কৌশল ব্যবহার করে সেই নমুনাগুলি পুনরায় পরীক্ষা করেন এবং ক্ষুদ্র আগ্নেয় কাচের দানার মধ্যে হাইড্রোজেন খুঁজে পান।

এরপর ২০০৯ সালে, ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থার চন্দ্রযান-১ এর সঙ্গে নাসা নিজেদের একটি অনুসন্ধানযন্ত্র পাঠিয়েছিল যা চাঁদের পৃষ্ঠে পানি শনাক্ত করে। একই বছর নাসার আরেকটি মিশন চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে পৃষ্ঠদেশের নিচে বরফ খুঁজে পেয়েছিল। এর আগে ১৯৯৮ সালে নাসার একটি মিশন চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে বরফের পুরু স্থর থাকার সম্ভাবনার কথা জানিয়েছিল।

যে কারণে চাঁদে পানি এত গুরুত্বপূর্ণ

বিজ্ঞানীরা চাঁদের প্রাচীন গর্তগুলোতে অনুসন্ধানে বেশি আগ্রহী। এই ক্রেটরস বা গর্তগুলো চাঁদের আগ্নেয়গিরি এবং যে সকল ধূমকেতু-গ্রহাণু পৃথিবীতে পানি নিয়ে এসেছিল তার রেকর্ড সরবরাহ করতে পারে বলে তাদের ধরণা, যা আমাদের মহাসাগরগুলোর উৎস সন্ধানে সাহায্য করবে।

বিজ্ঞানীরা চাঁদে প্রাচীন গর্ত অনুসন্ধানে বেশি আগ্রহী। এই গর্তগুলো চাঁদের আগ্নেয়গিরি এবং যে সকল ধূমকেতু-গ্রহাণু পৃথিবীতে পানি নিয়ে এসেছিল তার রেকর্ড সরবরাহ করতে পারে বলে তাদের ধরণা। যা আমাদের মহাসাগরগুলির উত্স সনাক্ত করতে সহায়তা করে।

যদি চাঁদে পর্যাপ্ত বরফ পাওয়া যায়, তবে তা অভিযাত্রীদের জন্য পানীয়জলের উত্স হতে পারে এবং চন্দ্রাভিযানের সরঞ্জাম ঠাণ্ডা করতে সাহায্য করতে পারে। তাছাড়া অক্সিজেন ও হাইড্রোজেন তৈরিতে এই বরফ কাজে লাগবে, যা মঙ্গল মিশনে সাহায্য করতে পারে।

১৯৬৭ সালে ইউনাইটেড নেশনস আউটার স্পেস চুক্তির মাধ্যমে চাঁদের মালিকানা দাবি করা থেকে সকলকে নিবৃত করা হলেও বাণিজ্যিক কার্যক্রমে নিষেধাজ্ঞার কোনো বিধান এতে নেই। চাঁদে অন্বেষণ এবং সম্পদ আহরণে যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তাবিত কিছু নীতির ভিত্তিতে আর্টেমিস অ্যাকর্ড প্রণয়ন করা হয় যেখানে ২৭টি দেশ স্বাক্ষর করে। যদিও চীন ও রাশিয়া এই অ্যাকর্ডে স্বাক্ষর করেনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২
Developed By ATOZ IT HOST