1. pundrotvnews@gmail.com : admin :
ফুল প্রকৃতির এক অপরূপ সৃষ্টি - Pundro TV
বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০১:৫১ অপরাহ্ন

ফুল প্রকৃতির এক অপরূপ সৃষ্টি

নাজমুল হাসান আনান
  • প্রকাশিতঃ সোমবার, ৪ জুলাই, ২০২২
dvdfgfd

ফুলের কোনো সময় অসময় নাই। বারো মাসের ষড়ঋতুতে কোনো না কোনো ফুল প্রকৃতির শোভা বর্ধন করে চলে। হোক তা পাহাড়ি ফুল কিংবা বাগানে সাজানো ফুল। হোক তা উঁচু ছাদ বাগানের ফুল কিংবা সুউচ্চ কৃষ্ণচূড়ার লাল রাঙানো ফুল। ফুল সে যেমনই হোক, হোক তা রঙ্গীন কিংবা সুগন্ধ ছড়ানো অথবা শুধু এক সাদা ফুল কিংবা পথের ধারের ঘাসফুল- সবই যেন প্রকৃতির অপূর্ব এক সৃষ্টি। যেকোনো ফুল দেখেই মানুষের হৃদয় বিগলিত না হয়ে পারেই না। ফুল নিয়ে পাষাণ হৃদয় যেমন বিগলিত হয়ে যায়, তেমনি কবিমনে আনন্দের ঘনঘটা খেলা করে যায়। তাই ফুল পাষাণ কিংবা দয়ালু সবার মনেই দোলা দেয়।

dvdfgfd

ফুল বেচাকেনা পৃথিবীতে প্রকৃতির সৌন্দর্য মানুষকে মনের প্রাপ্তি দেয়। অনেক সৌন্দর্যর মধ্যে ফুল অন্যতম। ফুল তার সুরভী আর সৌন্দর্যে যে কারো মনকেই নিমিষে ভালো করে দিতে পারে।

প্রিয়জনকে উপহার দেয়ার ক্ষেত্রে ফুল সবচেয়ে এগিয়ে। যেকোনো বিশেষ দিনে তাই প্রিয়জনকে ফুল উপহার দেয়ার রীতি বহু পুরনো। তাছাড়া উৎসবের দিনগুলোতে বিশেষ করে তরুণীরা ফুল দিয়ে সাজতে ভালোবাসে। এখন জেনে নিব অসময়ে বগুড়ার ফুল মার্কেট ব্যবসায়ীদের বেচাকেনা এবং ক্রেতাদের কথা।

বগুড়ার ফুল মার্কেট থেকে গড়ে আনুমানিক মাসে ১৮ লাখ টাকার বেচাকেনা হয়ে থাকে। তারা বেশির ভাগ যশোর থেকে ফুল নিয়ে আসে পাইকারি হারে। তবে সিরাজগঞ্জের কালীগঞ্জ ও বগুড়ার মাঝিড়া থেকেও ফুল কিনছেন তারা। প্রতি পিস গোলাপ বিক্রি হচ্ছে ৫ টাকা থেকে ৭ টাকা। জারবারা বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা পিস। রজনীগন্ধা ৫ টাকা পিস। গাঁধাফুল ৫ টাকা পিস হিসেবে বিক্রি হচ্ছে। বড় বুকেট বিক্রি হচ্ছে ২৫০ আর ছোট ১০০ টাকা। বিয়ের জন্য মালা ৩০০ টাকা আবার ছোট ছোট মালা ৩০ থেকে ৪০ টাকা। গোলাপের এখন অনেক বাহারি রং এর দেখা মেলে। আবার বিদেশী গোলাপের শোভা পাচ্ছে যেমন সাদা, গোলাপি, কালো ইত্যাদি। তরুন প্রজন্মের কাছে জারবারা ফুল এখন বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। অনেক কালারের এই ফুল হয়ে থাকে। যেমন, সাদা,গোলাপি, সাদাসের, লাল,কমলা ইত্যাদি।

বগুড়ার ফুল মার্কেট ব্যবসায়ী রাশেদুল ইসলাম বলেন, ২ দিন পর পর ৪ হাজার টাকার ফুল নিয়ে আসি যশোর থেকে। এখনকার যে বাজার তাতে এই টাকার ফুল বিক্রি করতেই অনেক ফুল পঁচে যায়। ব্যবসায়ী রফিকুল বলেন, সপ্তাহে ২০ হাজার টাকার মাল নিয়ে আসি যশোরের গতখালী বাগান থেকে। বেচাকেনার অবস্থা খুবই খারাপ। দিনে যা বিক্রি হয় তা দিয়ে কর্মচারী বিল, সংসার চালানো কঠিন হয়ে গেছে। ফুল কিনতে আসা সাধারণ ক্রেতা সাফা বলেন, আমার ফুল অনেক ভালো লাগে। আমাদের কোন অনুষ্ঠান থাকলে বেশি কেনা হয় তাছাড়াও আমি মাঝে মাঝে ফুল কিনতে আসি।

ফুল কিনতে এসে এমদাদুল হক বলেন, ফুল মানসিক শান্তির প্রতিক। আমি মাঝে মাঝে ফুল কিনতে আসি আমার ছোট মেয়ের জন্য।

কলেজ ছাত্রী মেহেনাজ আক্তার বলেন- মনের টানেই ফুল কিনি, বিশেষ দিবস তো আছেই এছাড়াও যখন মনে চায় তখনই প্রিয়জনের জন্য ফুল কিনি। ফুল কিনি নিজের মনের প্রশান্তির জন্য।

কলেজ ছাত্রী আতোকি আনতারা ফুল কিনতে এসে বলেন- তিনি ফুলকে ভালোবাসেন তাই ফুল কিনতে এসেছেন। নিজের জন্য কেনেন, প্রিয়জনের জন্য কেনেন।

গণমাধ্যম কর্মী মজুমদার সবুজ ফুল কিনতে এসে তার অভিব্যক্তি প্রকাশ করলেন এভাবে- ফুল একটি পবিত্র বস্তু। আমাদের বিভিন্ন ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানে এর ব্যবহার হয়ে থাকে। এছাড়া নিজের মনের প্রশান্তির জন্য ফুল কিনে থাকি। প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠেই ফুলের ব্যবহার হয়। আমার বাড়িতেও বিভিন্ন প্রকার ফুলের গাছ আছে। আমার মা সকালে ঘুম থেকে উঠে ফুল তোলে পূজা করার জন্য। আমাদের ধর্মের বিভিন্ন পূজা পার্বনে ফুলের আবশ্যকতা রয়েছে।

আন্তর্জাতিক বিশ্লেষক জুবায়ের হাসান ফুলের গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন- প্রকৃতির শোভা বর্ধন এবং মনের প্রফুল্লতার জন্য ফুলের চেয়ে অন্য কোনো কিছু আর তুলনীয় নয়।

ফুল নিয়ে কবি বলেছেন- জোটে যদি দুটি পয়সা, একটিতে খাদ্য ও অপরটিতে ফুল কিনিও।

ফুল পেলে আমার মেয়ে অনেক খুশি হয়। ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম বলেন, সপ্তাহে ২০ হাজার টাকার ফুল ক্রয় করি। আর দিনে ৩ হাজার টাকার ফুল বিক্রি করা যায় সিজন ছাড়া।

ফুল মার্কেট কল্যান সমিতির সভাপতি জুয়েল সরদার বলেন, আমাদের মার্কেটে ১৭ টি দোকান আছে। এখন খুব একটা বিক্রি হচ্ছে না। সিজনের সময় ভালো বেচাকেনা হয় কিন্তু এখন কর্মচারীর বেতন দিয়ে নিজের সংসার খরচ নিয়ে টান পড়ে যাচ্ছে। প্রতিদিন প্রায় ৬০ হাজার টাকার বিক্রি হয়। মাসে প্রায় ১ লাখ ৮০ হাজারের মতো বেচাকেনা হয়ে থাকে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১
Developed By Bongshai IT