1. pundrotvnews@gmail.com : admin :
বগুড়ায় আওয়ামী লীগ-বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ। ভিডিও - Pundro TV
শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০২:২৮ অপরাহ্ন

বগুড়ায় আওয়ামী লীগ-বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ। ভিডিও

পুন্ড্র.টিভি ডেস্ক
  • প্রকাশিতঃ রবিবার, ২৯ মে, ২০২২
dvdfgfd

বগুড়ার গাবতলী উপজেলায় আওয়ামী লীগ-বিএনপির মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ১৫ জন আহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছে। বিকেলে সংঘর্ষ থামলেও থমথমে বিরাজ করছে পুরো উপজেলাজুড়ে।

dvdfgfd

রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এসময় নেতাকর্মীরা হঠাৎ উত্তেজিত হয়ে লাঠি শোঠা নিয়ে বিএনপি ব্যানার ও পোস্টার ছিড়ে ফেলে ও উপজেলা বিএনপি কর্যালয়ে হামলা চালায়। পরে সভাপতি মোরশেদ মিল্টনের বাড়িতে হামলা করে।

এসময় স্থানীয় জনসাধারন ও বিএনপি নেতাকর্মীরা প্রতিরোধ করে। পরে দুই পক্ষের মাঝে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। প্রায় দুই ঘন্টা দুই পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ চলে। এসময় বেশ কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরনের ঘটনা ঘটে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাবার বুলেট ছুড়ে দুপক্ষের নেতাকর্মীদের ছত্র ভঙ্গ করে দেয়।

বিএনপি নেতারা অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ একত্রি হয়ে গাবতলী উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোর্শেদ মিলটনের বাসায় হামলা চালায়। এসময় গ্রামবাসী হামলাকারীদের প্রতিরোধ করে। পরে বিএনপির নেতাকর্মীরা একত্রি হলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এসময় উভয় পক্ষের ৭/৮জন আহত হয়। পরে পুলিশ উভয় দলের মাঝখানে অবস্থান নিয়ে কিছুক্ষণ সংঘর্ষ থামে থাকে।

পরে বিকেল তিনটার দিকে উভয় পক্ষের মধ্যে আবারো সংঘর্ষ বাধে। এসময় পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের লক্ষ্যকরে রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এতে প্রায় ১৫জন বিএনপির নেতাকর্মী আহত হয়। আহতদের মধ্যে গাবতলী পৌরসভার কাউন্সিলর ও যুবদল নেতা হারুন অর রশিদ, যুবদল নেতা সেলিম রেজা, মালেক মোক্তাদির, গাবতলী উপজেলা ছাত্রদল নেতা এম আর হাসান পলাশ, ছাত্রদল নেতা আশিক, আল আমিন, হ্যাপিসহ অনেকে।

এসময় আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা বিএনপির উপজেলা কার্যালয়ে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং আসবাবপত্র ভাংচুর করে।

এছাড়াও গাবতলী উপজেলা ছাত্রদল নেতা রনি মিয়ার একটি মোবাইল ফোনের দোকানে হামলা চালিয়ে লুটপাট করার অভিযোগ করেছেন ওই নেতা। রনি বলেন, আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ নেতা কর্মীরা এসময় তার দোকান থেকে প্রায় ৫লাখ টাকার মোবাইল ফোন লুট করেছে। কম্পিউটারসহ দোকানের আসবাবপত্র ভাংচুর করা হয়েছে।

বগুড়া জেলা বিএনপির আহবায়ক রেজাউল করিম বাদশা বলেন, পুলিশের রাবার বুলেটে বিএনপির বেশ কিছু নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। আমাদের এক নেত্রীর বক্তব্যের জেরে আওয়ামী লীগের লোকজন গাবতলী উপজেলা বিএনপির সভাপতির বাড়িতে হামলা করতে গেলে মূলত গ্রামবাসী প্রথমে তাদের প্রতিরোধ করে। পরে পরিস্থিতি অন্যদিকে মোড় নেয়।

উল্লেখ্য গত শুক্রবার গাবতলী উপজেলা বিএনপির সম্মেলনে বিএনপি নেত্রী ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সুরাইয়া জেরিন রনি বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটুক্তি করেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগ সেই বক্তেব্যে অনেকটা ফুসে উঠেছে। তারা ওই নেত্রীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ এবং কুশপুত্তলিকা পুড়িয়েছে। পরে আওয়ামী লীগ নেতা ও জেলা পরিষদের সদস্য সুলতান মাহমুদ খান রনি বাদি হয়ে মামলাও করেছেন।

এদিকে গাতবলী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সিরাজুল ইসলাম সিরাজ রাবার বুলেট নিক্ষেপের কথা স্বীকার করে বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য দুই রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়া হয়েছে। তিনি বলেন, এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১
Developed By Bongshai IT