1. pundrotvnews@gmail.com : admin :
ডেপুটি স্পিকারের রায়ের উপর শুনানি শুরু করল পাক সুপ্রিম কোর্ট - Pundro TV
রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ০১:৩৮ পূর্বাহ্ন

ডেপুটি স্পিকারের রায়ের উপর শুনানি শুরু করল পাক সুপ্রিম কোর্ট

পুন্ড্র.টিভি ডেস্ক
  • প্রকাশিতঃ বুধবার, ৬ এপ্রিল, ২০২২
dvdfgfd

ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে (এনএ) ডেপুটি স্পিকার কাসিম শাহ সুরি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে আনা অনাস্থা প্রস্তাব খারিজ করে দেওয়ার বিষয়ে স্বতঃপ্রণোদিত মামলা দায়ের হবার পর পুনরায় শুনানি শুরু করল পাক সুপ্রিম কোর্ট। স্বতঃপ্রণোদিত মামলা দায়ের করার সিদ্ধান্ত নেন পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতি উমর আতা বান্দিয়াল। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে বিচারপতি ইজাজুল আহসান, বিচারপতি মোহাম্মদ আলী মাজহার, বিচারপতি মুনিব আখতার ও বিচারপতি জামাল খান মান্দোখাইলের সমন্বয়ে গঠিত পাঁচ সদস্যের বেঞ্চে মামলার শুনানি হবে। মঙ্গলবার, আবেদনকারীর পক্ষ তাদের বক্তব্য শেষ করেছে। আজ সরকারি আইনজীবী ড. বাবর আওয়ান, সিনেটর আলী জাফর ও ইমতিয়াজ সিদ্দিকী তাদের পক্ষে বক্তব্য রাখবেন।

dvdfgfd

গতকালের শুনানির সময়, প্রধান বিচারপতি বান্দিয়াল একটি বিষয় স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন যে, সুপ্রিম কোর্ট রাষ্ট্র এবং পররাষ্ট্র নীতির বিষয়ে হস্তক্ষেপ করবে না কেবলমাত্র ডেপুটি স্পিকারের রায়ের বৈধতা নির্ধারণ করবে। পিএমএল-এন আইনজীবী মখদুম আলি খান আদালতকে “গোয়েন্দা প্রধানের কাছ থেকে বিদেশি ষড়যন্ত্র সম্পর্কে জানতে চেয়ে ইন-ক্যামেরা ব্রিফিং” রাখার পরামর্শ দিয়েছিলেন, সেই প্রসঙ্গে নিজের মতামত জানিয়ে দেন প্রধান বিচারপতি। মখদুম খানের অভিযোগ ছিল, ডেপুটি স্পিকার অনাস্থা প্রস্তাবে ভোট না করেই আর্টিকেল-৫ এর উত্থাপন করে অধিবেশনটি স্থগিত করে দেন।

আসলে ডেপুটি স্পিকারের যুক্তি ছিল, বিদেশি শক্তির প্ররোচনায় আনা এই অনাস্থা প্রস্তাব আসলে সংবিধান-বিরোধী এবং তা দেশের পক্ষে ক্ষতিকর। তাই এ নিয়ে কোনও ভোটাভুটি হতে দিতে পারবেন না তিনি। আজ মামলার শুনানির সময়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘‘এখন আমাদের বিবেচ্য বিষয় একটিই। কেন ডেপুটি স্পিকার অনাস্থা প্রস্তাব বাতিল করে দিলেন। আমাদের প্রশ্ন- তাঁর সেই পদক্ষেপ কি সংবিধান বিরোধী ছিল? আমরা সব পক্ষকে সেই বিষয়টির উপরেই নজর রাখতে বলব।’’ সরকার-বিরোধী জোটের হয়ে আদালতে সওয়াল করেছেন পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি)-র সেনেটর রাজ়া রব্বানি এবং আইনজীবী মাখদুম আলি খান। রব্বানির কথায়, ‘‘সে দিন যা হল তা গণতন্ত্রের নামে জরুরি ব্যবস্থা জারি করা ছাড়া আর কিছুই নয়।’’ সেদিনের ঘটনাকে ‘বেসামরিক অভ্যুত্থান’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন তিনি।

সেই সঙ্গে বলেন, একাধিক অনুষ্ঠানে, হাউসের অধিবেশন চলাকালীন, এটি দেখানো হয়েছিল যে প্রধানমন্ত্রী সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়েছেন। এটি একটি রেকর্ডের বিষয় যে ইমরান খান বলেছিলেন যে তাকে তিনটি বিকল্প দেওয়া হয়েছিল: মুখোমুখি অনাস্থা ভোট, পদত্যাগ অথবা আগাম নির্বাচন অনুষ্ঠান। রাব্বানী সুপ্রিম কোর্টকে জাতীয় নিরাপত্তা কমিটির বৈঠকের কার্যবিবরণী তলব করারও অনুরোধ করেছেন। রাব্বানীর মতে, অভিযোগের সত্যতা পরীক্ষা করার জন্য স্বাধীন বিচার শুরু করা উচিত, প্রয়োজনে একটি বিচার বিভাগীয় কমিশন গঠন করা যেতে পারে। সওয়াল-জবাবের সময়ে শেহবাজ শরীফের প্রতিনিধিত্বকারী মাখদুম আলি খান দাবি করেছেন যে ডেপুটি স্পিকারের ৩ এপ্রিলের রায়টি আসলে বেআইনি এবং সংবিধান লঙ্ঘনের সমান।

খানের দাবি, সুপ্রিম কোর্টের এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার সমস্ত অধিকার রয়েছে। আদালত যদি উপসংহারে আসে যে ডেপুটি স্পিকারের রায় এবং পরবর্তী বিধানসভা স্থগিত করা অসাংবিধানিক এবং বেআইনি ছিল, তাহলে রাষ্ট্রপতি আরিফ আলভির বিধানসভা ভেঙে দেওয়ার পরামর্শ সহ সমস্ত পরিণতিমূলক পদক্ষেপ এমনকি কেয়ারটেকার প্রধানমন্ত্রী নিয়োগের মনোনয়নও সমানভাবে অসাংবিধানিক বলে বিবেচিত হবে। এদিকে সংবিধান অনুসারে আর্টিকেল ৬৯ স্পিকারের ক্রিয়াকলাপকে আদালতে চ্যালেঞ্জ করা থেকে রক্ষা করে। এর প্রেক্ষিতে শেহবাজ শরীফের আইনজীবী পাল্টা যুক্তি দিয়েছেন সংসদীয় কার্যক্রমে পদ্ধতিগত অনিয়ম স্পিকারের সাথে সম্পর্কিত, এমনটাই বলা আছে সংবিধানের ৫৪ নম্বর অনুচ্ছেদে।

একটি উদাহরণ উদ্ধৃত করে, কৌঁসুলি যুক্তি দিয়েছেন- যদি একজন প্রধানমন্ত্রীর স্পিকার ব্যতীত হাউসে কোনও সমর্থন না থাকে, তবে অনুচ্ছেদ ৯৫ অকার্যকর হয়ে যাবে যদি তিনি (স্পিকার) অনাস্থা প্রস্তাবের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে অপসারণের প্রতিটি পদক্ষেপকে বাতিল করেন।
সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকলে কেউ প্রধানমন্ত্রী থাকতে পারেন না। শুনানির সময়, বিচারপতি মুনিব আখতার পর্যবেক্ষণ করেন যে যদি কৌঁসুলির যুক্তি গৃহীত হয়, তাহলে ছোটোখাটো বেআইনি বিষয়ও সরাসরি আদালতের দরজায় পৌঁছে যাবে এবং ক্ষমতার অপব্যবহার করা হবে। এটাই কি সংবিধানের অভিপ্রায়?

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১
Developed By Bongshai IT