1. pundrotvnews@gmail.com : admin :
একযোগে পদত্যাগ করলেন শ্রীলঙ্কার ২৬ মন্ত্রী। ভিডিও - Pundro TV
শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১১:৪২ পূর্বাহ্ন

একযোগে পদত্যাগ করলেন শ্রীলঙ্কার ২৬ মন্ত্রী। ভিডিও

পুন্ড্র.টিভি ডেস্ক
  • প্রকাশিতঃ সোমবার, ৪ এপ্রিল, ২০২২
dvdfgfd

দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যেই মন্ত্রিসভা থেকে একযোগে ২৬ জন মন্ত্রী পদত্যাগ করেছেন। দেশটির প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে ও প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসে ছাড়া মন্ত্রিসভার ২৬ সদস্য রোববার রাতে এক বৈঠকের পর পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন।

dvdfgfd

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে শ্রীলঙ্কার শিক্ষামন্ত্রী দীনেশ গুণবর্ধন সংবাদমাধ্যমকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ।মন্ত্রীদের এমন গণ পদত্যাগকে দেখা হচ্ছে সংকট সামলাতে সরকারের ব্যর্থতার প্রতিবাদ হিসেবে।  তবে প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে ও প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দ্রা রাজাপাকসে পদত্যাগপত্র জমা না দিলেও প্রধানমন্ত্রীর ছেলে নমাল রাজাপাকসে পদত্যাগ করেছেন।এক টুইট বার্তায় তিনি বলেছেন, তিনি আশা করছেন, এটি জনগণ ও সরকারের জন্য স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নিতে প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীকে সহায়তা করবে।

গত কদিন ধরেই চলছে তুমুল সরকারবিরোধী বিক্ষোভ। দেশের এই করুণ পরিণতির জন্য তারা রাজাপাকসে পরিবারকেই দুষছেন। মন্ত্রীদের গণ পদত্যাগের পরেও তাদের ক্ষোভ পড়ছে না। টুইটারে অনেকেই এই পদক্ষেপকে ‘মশকরা’ বলে উপহাস করেছেন। আবার কেউ কেউ বলছেন, স্বৈরশাসকদের প্লেবুক থেকে একটি কৌশল ব্যবহার করছে সরকার। আরেক সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী লিখেছেন, আমরা সকল রাজাপাকসের পদত্যাগ দেখতে চাই। সকল মন্ত্রী ও তাদের রাজনৈতিক সহযোগী, তাদের দুর্নীতিগ্রস্ত বন্ধু এবং তাদের সমর্থন দেয়া গণমাধ্যমগুলোর পতন চাই।

এদিকে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ ঠেকাতে শ্রীলঙ্কার রাস্তায় দেশটির সেনারা অবস্থান নিয়েছে। বিক্ষোভকারীরা সরকারের জারি করা ৩৬ ঘণ্টার কারফিউ উপেক্ষা করে বিক্ষোভ করছে। এ ছাড়া বিক্ষোভ দমন করতে সরকার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম বন্ধ করে দিয়েছে। দুই কোটি ২০ লাখ জনসংখ্যার এই দ্বীপ রাষ্ট্রটিতে শনিবার সন্ধ্যা ৬ টায় শুরু হওয়া কারফিউ চলবে সোমবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত।

দেশটিতে অর্থনীতি ধসে পড়ার জন্য সরকারকে দায়ী করে বৃহস্পতিবার (৩১ মার্চ) রাতে কলম্বোর মিরিহানায় প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসের বাসভবনের বাইরে বিক্ষোভ শুরু করে কয়েকশ মানুষ। এতে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় বিক্ষোভকারীদের। টিয়ার শেল ও জলকামান ব্যবহার করে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে পুলিশ। সংঘর্ষে আহত হন অন্তত ৫০ জন। বিক্ষোভের ঘটনায় ৪৫ জনকে আটক করা হয়।

দক্ষিণ এশিয়ার এই দেশটিতে বর্তমানে তীব্র খাদ্য, জ্বালানি এবং অন্য প্রয়োজনীয় পণ্যদ্রব্যের সংকট দেখা দিয়েছে। সঙ্গে রেকর্ড মুদ্রাস্ফীতি এবং বিদ্যুৎ বিপর্যয় তো আছেই। ১৯৪৮ সালে ব্রিটিশদের কাছ থেকে স্বাধীন হওয়ার পর এর আগে এমন সংকটে আর পড়েনি দেশটি। এদিকে ব্যাপক সমালোচনার পর রবিবার দিনের দ্বিতীয়ার্ধে সোশ্যাল মিডিয়ার ওপর থেকে ‘অস্থায়ী’ নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়। স্বয়ং প্রেসিডেন্টের ভাতিজা ক্রীড়ামন্ত্রী এর নিন্দা করেছিলেন। ইন্টারনেটের ওপর এ নিয়ন্ত্রণ দেশজুড়ে বেশ কয়েকটি ছোট বিক্ষোভে বাধা হয়ে উঠতে পারেনি।

জরুরি আইনের ব্যবহার নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন কলম্বোতে থাকা পশ্চিমা কূটনীতিকরা। জরুরি আইন ব্যবহার করে সন্দেহভাজনদের গ্রেপ্তার ও আটক করতে পারে সামরিক বাহিনী; কূটনীতিকরা বলেছেন, তারা ঘনিষ্ঠভাবে বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১
Developed By Bongshai IT