1. pundrotvnews@gmail.com : admin :
শান্তি আলোচনার আগে দেশের অখণ্ডতায় জোর জেলেনস্কির ভিডিওসহ - Pundro TV
বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০১:২১ পূর্বাহ্ন

শান্তি আলোচনার আগে দেশের অখণ্ডতায় জোর জেলেনস্কির ভিডিওসহ

পুন্ড্র.টিভি ডেস্ক
  • প্রকাশিতঃ সোমবার, ২৮ মার্চ, ২০২২
dvdfgfd

শান্তি আলোচনার অংশ হিসেবে ইউক্রেইন নিরপেক্ষ রাষ্ট্র হতে ইচ্ছুক এবং দনবাস অঞ্চলের বিষয়ে আপস করতে চায়, এমনটি জানানোর কিছুক্ষণ পর দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি দেশের অখণ্ডতা রক্ষার ওপর জোর দিয়েছেন।

dvdfgfd

তুরস্কে চলতি সপ্তাহে রাশিয়া ও ইউক্রেইনের মধ্যে শান্তি আলোচনা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে, তার আগে জেলেনস্কি এসব কথা বলেছেন বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে।

রোববার রাতে জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়ার এক ভিডিও ভাষণে জেলেনস্কি বলেছেন, ইস্তাম্বুলের শান্তি আলোচনায় তার সরকার ইউক্রেইনের ‘আঞ্চলিক অখণ্ডতার’ বিষয়টিতে অগ্রাধিকার দেবে।

তবে একইদিন এর আগে রাশিয়ার সাংবাদিকদের সঙ্গে জেলেনস্কি ভিন্ন সুরে কথা বলেছেন। তিনি তাদের জানিয়েছেন, ইউক্রেইন নিরপেক্ষ দেশ হতে ইচ্ছুক এবং শান্তি চুক্তির অংশ হিসেবে পূর্বাঞ্চলীয় দনবাস অঞ্চলের মর্যাদা নিয়ে আপস করতে চায়।

ওই সাংবাদিকদের সঙ্গে এক ভিডিও কলে জেলেনস্কি বলেছেন, কোনো সমঝোতা হলে তৃতীয় কোনো পক্ষকে অবশ্যই তার নিশ্চয়তা দিতে হবে এবং গণভোটের মাধ্যমে ওই সমঝোতার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

রুশ ভাষায় তিনি বলেছিলেন, “আমাদের রাষ্ট্রের অপারমাণবিক অবস্থা, নিরাপত্তার নিশ্চয়তা এবং নিরপেক্ষতা। আমরা এর জন্য প্রস্তুত।”

এই সাক্ষাৎকারের বিষয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ না করার জন্য রাশিয়ার গণমাধ্যমকে ক্রেমলিন আগেই সতর্ক করে দিয়েছিল।

এর আগে ইউক্রেইনের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান কিরিলো বুদানভ বলেছিলেন, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেইনকে দুই ভাগে বিভক্ত করে উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মতো মস্কো-নিয়ন্ত্রিত পূর্বাঞ্চল তৈরির চেষ্টা চালাচ্ছেন।

রাশিয়ার বাহিনীগুলো আক্রমণ ঠেকাতে পশ্চিমা দেশগুলোর কাছে ট্যাঙ্ক, বিমান ও ক্ষেপণাস্ত্র সাহায্য চেয়েছিলেন জেলেনস্কি।

রোববার পুতিনের সঙ্গে এক ফোন কলে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিজেপ তায়িপ এরদোয়ান রাশিয়া ও ইউক্রেইনের মধ্যে শান্তি আলোচনা আয়োজন করতে সম্মত হন।

এরদোয়ানের দপ্তর জানিয়েছে, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট যুদ্ধবিরতি ও উন্নত মানবিক পরিস্থিতি তৈরির আহ্বান জানিয়েছেন।

রাশিয়া ও ইউক্রেইনের আলোচকরা জানিয়েছেন, ইস্তাম্বুলে দুই পক্ষের মধ্যে সরাসরি আলোচনা হবে।

পাকিস্তানে পার্লামেন্টে অনাস্থা প্রস্তাব ওঠার আগের দিন রাজধানীকে বিশাল সমাবেশ করে নিজের শক্তি দেখিয়ে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খা্ন বলেছেন, তার সরকারে পতন ঘটাতে বিদেশ থেকে অর্থ ঢালা হচ্ছে।

বিরোধী দলগুলো ইমরানের দল তেহরিক-ই ইনসাফের সরকারে উপর সোমবার অনাস্থা প্রস্তাব তুলতে যাচ্ছে পার্লামেন্টে। তার আগের দিন রোববার ইসলামাবাদের প্যারেড গ্রাউন্ডে সমাবেশ করেন ইমরান।

বিদেশি ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবেই এই অনাস্থা প্রস্তাব তোলা হচ্ছে ইমরান ভাষণে দাবি করেন বলে পাকিস্তানের সংবাদপত্র ডন এর প্রতিবেদনে বলা হয়।

ক্রিকেটের মাঠ থেকে রাজনীতিতে আসা ইমরান ২০১৮ সালে ভোটে জিতে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর এখনই বড় সঙ্কট মোকাবেলা করছেন বলে বিশ্লেষকদের ভাষ্য।

অনাস্থা প্রস্তাবের উপর ভোটাভুটির আগে তেহরিক-ই-ইনসাফের অর্ধশত মন্ত্রীকে রাজনৈতিক দৃশ্যপটে দেখা না যাওয়ায় নানা গুঞ্জনের মধ্যে রোববার লক্ষাধিক মানুষের সমাবেশ করেন ইমরান।

হেলিকপ্টারে সমাবেশস্থলে নামার পর দুই ঘণ্টার দীর্ঘ ভাষণে ইমরান শুরুতে সরকারের নানা অর্জন তুলে ধরেন। এরপর তুলোধুনো করেন বিরোধীদের।

শেষে ষড়যন্ত্রের কথা তুলে তিনি বলেন, পাকিস্তানের পররাষ্ট্র নীতিতে বৈদেশিক প্রভাবের বিপক্ষে অবস্থান নেওয়ার কারণেই তার সরকারের বিরুদ্ধে এমন ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

ইমরান বলেন, “আমরা এই চক্রান্ত সম্পর্কে কয়েকমাস ধরেই জানি। আমরা তাদেরকেও চিনি যারা এই লোকগুলোকে একাট্টা করেছে (বিরোধীদলগুলো)।”

“কিন্তু সময় বদলেছে। এটা জুলফিকার আলি ভুট্টোর আমল না। এটা স্যোশাল মিডিয়ার যুগ। এখানে কোনো কিছুই চাপা থাকে না,” বলেন তিনি।

ইমরান খান বলেন, “বিদেশি অর্থ ব্যবহার করে পাকিস্তানে সরকার পরিবর্তনের চেষ্টা চলছে। আমাদের লোকজনকে ব্যবহার করা হচ্ছে। কিছু লোক আমাদের বিরুদ্ধে অর্থ ব্যবহার করছে। আমাদের চাপ দিতে কোন জায়গা থেকে এসব করা হচ্ছে, তা আমরা জানি।”

“আমরা কারও নির্দেশনা মেনে নেব না। প্রত্যেকের সঙ্গেই আমাদের বন্ধুত্ব আছে। কিন্তু আমরা কারও কাছে নিজেদের সমর্পণ করব না,” বলেন তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১
Developed By Bongshai IT