1. pundrotvnews@gmail.com : admin :
স্কুইড গেম জ্বরে কাঁপছে বিশ্ব - Pundro TV
রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ০১:৩০ পূর্বাহ্ন

স্কুইড গেম জ্বরে কাঁপছে বিশ্ব

পুন্ড্র.টিভি ডেস্ক
  • প্রকাশিতঃ শুক্রবার, ৮ অক্টোবর, ২০২১
dvdfgfd

স্কুইড গেম জ্বরে কাঁপছে পুরো বিশ্ব। সম্প্রতি ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নেটফ্লিক্সে মুক্তি পাওয়া কোরীয় এই ওয়েব সিরিজটি ঘিরে ক্রমেই বাড়ছে উন্মাদনা। আর সেই উন্মাদনা ছড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন দেশে।

dvdfgfd

অনেকেই আবার এর জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে খুলে বসেছেন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, নিত্য নতুন অফার আর নানা আয়োজনে রেস্তোরাঁগুলোতে ভোক্তা টানার প্রতিযোগিতায় ব্যবসায়ীরা। এরইমধ্যে নেটফ্লিক্সের ইতিহাসে সবচেয়ে জনপ্রিয় সিরিজের খেতাবও অর্জন করেছে স্কুইড গেম।

একটি গেম, যা কেবলমাত্র একটি গেম নয়, বাঁচতে হলে প্রতিটি গেমে উত্তীর্ণ হতে হবে প্রতিযোগীকে, নয়তো নিশ্চিত মৃত্যু। শৈশবের মজার মজার খেলাগুলোকে ভিন্ন রূপ দিয়ে তৈরি এই ডেথ গেমকে মূল থিম ধরেই এগিয়েছে কোরীয় ওয়েব সিরিজ স্কুইড গেমের কাহিনী। যা এরইমধ্যে সাড়া ফেলেছে গোটা দুনিয়ায়। এমনকি নেটফ্লিক্স ইতিহাসের সবচেয়ে জনপ্রিয় সিরিজের তকমাও লেগেছে স্কুইড গেমের গায়ে।

ওয়েব সিরিজটির ধারাবাহিক সাফল্যে এটি নিয়ে দর্শকদের মধ্যে ক্রমেই বাড়ছে উন্মাদনা। এই উন্মাদনাকে কাজে লাগিয়ে নিত্য নতুন অফার আর আয়োজনের পসরা সাজিয়ে বসেছে বিভিন্ন দেশের নামি-দামি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো। বাদ যাচ্ছেনা রেস্তোরাঁগুলোও।

ফিলিপিন্সের রাজধানী ম্যানিলায় একটি শপিং হলের বাইরে এভাবেই স্থাপন করা হয়েছে স্কুইড গেমের প্রথম পর্ব ‘রেড লাইট গ্রিন লাইটে’ দেখানো একটি পুতুল চরিত্রের আদলে তৈরি ১০ ফুট লম্বা একটি পুতুল। মলে ঢুকতেই যা দেখে চমকে উঠছেন অনেকেই।

অন্যদিকে   স্কুইড গেম জ্বরে কাঁপছে সিঙ্গাপুরও। দেশটির বিভিন্ন রেস্তোরাঁয় চলছে গেমটির আদলে ক্যান্ডি চ্যালেঞ্জ। আকৃতি ঠিক রেখে ক্যান্ডি ভাংতে পারলেই মিলবে পুরস্কার, তবে ব্যর্থ হলে সিরিজটিতে মৃত্যু নিশ্চিত হলেও এখানে মরতে হচ্ছে না কাউকেই, পরিবর্তে মিলবে না কোন পুরস্কার।

পিছিয়ে নেই ওয়েব সিরিজটি তৈরি করা দেশ  দক্ষিণ কোরিয়াও। এই একটি ওয়েব সিরিজ দিয়ে যেন পুরো বিশ্বে নিজেদেরকে আরেকবার নতুন করে চিনিয়েছে কোরীয়বাসী। দেশটির রাজধানী সিউলের বিভিন্ন শপিং মল আর রেস্তোরাঁয় চলছে স্কুইড গেম উন্মাদনা, পাশাপাশি ডালগোনা ক্যান্ডি চ্যালেঞ্জ। রয়েছে থিমভিত্তিক নানা আয়োজনও।

দক্ষিণ কোরিয়ার এক বাসিন্দা বলেন, আগে এখানে প্রতিদিন গড়ে একশ মানুষ খেতে আসতো, এখন ২০০-৩০০ মানুষ আসছে, কেবলমাত্র ক্যান্ডি চ্যালেঞ্জে অংশ নিতে।

গেল ১৭ সেপ্টেম্বর ওটিটি প্ল্যাটফর্ম নেটফ্লিক্সে মুক্তি পায় স্কুইড গেম। এরপর দশদিনেই ৯০টি দেশে এক নম্বরে স্থানে উঠে আসে সিরিজটি। এটির ধারাবাহিক সাফল্যে তাই দক্ষিণ কোরিয়ায় অরিজিনাল কন্টেন্ট তৈরিতে ৫০ কোটি মার্কিন ডলার বিনিয়োগের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে নেটফ্লিক্স কর্তৃপক্ষ।

 

গেমের নেশায় ধ্বংস হচ্ছে দেশের যুব সমাজ। তাই সমাজ বিজ্ঞানীরা মনে করেন এ গেমের প্রভাব বাংলাদেশে পরার আগেই সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১
Developed By Bongshai IT